শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষা কি (Child Centered Education) : ধারণা, সংজ্ঞা ও বৈশিষ্ট্য

শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষা (Child Centered Education) হল শিশুর আগ্রহ, প্রবণতা, চাহিদা, সামর্থ্য, মনোযোগ প্রভৃতির উপর গুরুত্ব আরোপ করে যথাযথ শিক্ষার ব্যবস্থা করা।

শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষার মূল কেন্দ্রবিন্দু হল শিশু বা শিক্ষার্থী। প্রাচীনকালে শিক্ষা ছিল গতানুগতিক। কিন্তু আধুনিক শিক্ষার লক্ষ্য হল শিক্ষার্থীদের সর্বাঙ্গীন বিকাশ সাধন করা। অর্থাৎ শিশুর দৈহিক, মানসিক, প্রাক্ষোভি, আধ্যাত্মিক প্রভৃতির বিকাশ সাধন করা। আর এই আধুনিক শিক্ষার উপর গুরুত্ব আরোপ করে সম্পূর্ণ শিক্ষা ব্যবস্থাকে শিশু কেন্দ্রিক করার কথা বলা হয়েছে। অর্থাৎ প্রাচীন গতানুগতিক ও শিক্ষক কেন্দ্রিক শিক্ষার বিরোধিতা করে শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষার জন্ম হয়েছে।

Table of Contents

শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষার ধারণা (Concept of Child Centered Education)

প্রাচীনকালে শিক্ষাদান ব্যবস্থা ছিল গতানুগতিক, শিক্ষক কেন্দ্রিক এবং সংকীর্ণ অর্থে শিক্ষা। তাই প্রাচীনকালে শিক্ষাকে বলা হত – “Spare the rod and spoil the child.” অর্থাৎ দুরন্ত শিশুকে ডান্ডা মেরে ঠান্ডা করার নীতি ছিল শিক্ষার প্রধান বিষয়। ফলে শিক্ষা ক্ষেত্রে শিশুদের উপর কোন গুরুত্ব আরোপ করা হতো না।

শিক্ষকগণ ছিলেন শিশুর প্রধান শাসনকর্তা। অর্থাৎ শিক্ষক হলেন সক্রিয় জ্ঞানদাতা ও প্রাণবন্ত মানুষ। যেখানে শিক্ষার্থীদের ভূমিকা ছিল নিষ্ক্রিয় শ্রোতার।

একটি প্রবাদ প্রচলিত আছে – ঘোড়াকে জোর করে জলের কাছে নিয়ে আসা যায়, কিন্তু তাকে জল খাওয়ানো যায় না। ঠিক তেমনি প্রাচীনকালে শিক্ষায় শিশুকে জোর করে শিক্ষার আঙিনায় আনা হতো।

এখানে শিক্ষার অর্থ হল – শিক্ষার জন্য শিশু, শিশুর জন্য শিক্ষা নয়। আর এই প্রাচীন গতানুগতিক শিক্ষা ব্যবস্থার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ স্বরূপ জন্ম হয়েছে – শিশু কেন্দ্রিক শিক্ষার (Child Centered Education)।

শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষার প্রবক্তা (Proponent of child-centered education)

শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষার (Child Centered Education) প্রধান প্রবক্তা হলেন ফরাসি শিক্ষাবিদ ও দার্শনিক রুশো (Jean Jacques Rousseau). তাই রুশোকে শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষার জনক (Father child-centered education)বলা হয়ে থাকে।

তাছাড়া শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষার সমর্থক ছিলেন – প্লেটো, কুন্টিলিয়ন, মানবতাবাদী শিক্ষক ইরাসমাস, বাস্তববাদী শিক্ষাবিদ ক্রমিনিয়াস, জন ডিউই, ফ্রয়েবেল প্রমূখ।

শিশু কেন্দ্রিক শিক্ষা কাকে বলে বা শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষার সংজ্ঞা (Definition of Child Centered Education)

যে শিক্ষা শিশুর চাহিদা, আগ্রহ, প্রবণতা, মনোযোগ, ক্ষমতা প্রভৃতির উপর গুরুত্ব আরোপ করে এবং সেই অনুযায়ী শিক্ষার লক্ষ্য, শিক্ষার পাঠক্রম, শিক্ষাদান পদ্ধতি, শিক্ষকের ভূমিকা প্রভৃতি নির্ধারিত হয়, তাকে শিশু কেন্দ্রিক শিক্ষা বলে (Child Centered Education)।

শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষা অনুযায়ী – শিক্ষার মূল কেন্দ্রবিন্দু হল শিশু বা শিক্ষার্থী। অর্থাৎ শিশুকে কেন্দ্র করে যে শিক্ষার সমস্ত আয়োজন সম্পন্ন করা হয়ে থাকে, তাকে শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষা বলে। শিশুর বিকাশ সাধন করাই হল শিশু কেন্দ্রিক শিক্ষার মূল লক্ষ্য।

বিশিষ্ট প্রকৃতিবাদী দার্শনিক ও শিক্ষাবিদ রুশো (Rousseau) শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষার ক্ষেত্রে মন্তব্য করেছেন – ” শিশুকে একাকী থাকতে দাও, তাকে তথাকথিত সভ্য মানুষ হবার চেয়ে প্রাকৃতিক মানুষ হতে দাও। তাকে এক প্রাকৃতিক অবস্থা পেতে দাও। কৃত্রিম পরিবেশ যেন তার স্বাভাবিক বৃদ্ধি ও বিকাশকে বাধা দিতে না পারে”।

রুশো (Rousseau) এ প্রসঙ্গে আরোও The Social Contact গ্রন্থে বলেছেন – “জন্ম মুহূর্তে মানুষ স্বাধীন, কিন্তু পরবর্তীকালে সে সর্বত্র শৃংখলে আবদ্ধ হয়”। (Man is born free, but every where he is in chains.)

আবার, শিশু কেন্দ্রিক শিক্ষা সম্পর্কে পেস্তালৎসি (Pestalozzi) বলেছেন – “I wish psychologize Education”. অর্থাৎ আমি শিক্ষাকে মনোবিজ্ঞান সম্মত করতে চাই।

আরোও পোস্ট পড়ুন – Click Here Now

শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষার বৈশিষ্ট্য বা মূলনীতি (Characteristics of Child Centered Education)

শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষা (Child Centered Education) মূল কেন্দ্রবিন্দু হল শিশু বা শিক্ষার্থী। এই শিক্ষার যে সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্য বা মূলনীতি পরিলক্ষিত হয় সেগুলি হল –

1. শিশুই প্রধান

শিশু কেন্দ্রিক শিক্ষার প্রধান বৈশিষ্ট্য হল শিশুই প্রধান। অর্থাৎ এই শিক্ষার মূল কেন্দ্রবিন্দুতে রয়েছে শিশু। শিশুর চাহিদা, আগ্রহ, প্রবণতা ও সামর্থ্য অনুযায়ী এই শিক্ষা যাবতীয় আয়োজন করা হয়ে থাকে।

2. অবাধ স্বাধীনতা

শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষাতে শিশুকে অবাক স্বাধীনতা দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। অর্থাৎ বাইরে থেকে চাপিয়ে দেয়ার শিক্ষা নয় শিশু তার নিজের আগ্রহ অনুযায়ী শিক্ষা লাভ করবে। শিশুকে তার নিজের মতো করে বেড়ে ওঠার সুযোগ করে দিতে হবে। এ বিষয়ে শিক্ষকগণ তাকে সাহায্য করবেন।

3. সৃজনশীলতা

শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষার অন্যতম বৈশিষ্ট্য হল সৃজনশীলতা। প্রতিটা শিশুর মধ্যে অন্তর্নিহিত সম্ভাবনা নিহিত রয়েছে। আর এই অন্তর্নিহিত সম্ভাবনা প্রকাশ বা বিকাশ সাধনের জন্য শিশুকে তার মত অনুযায়ী বিকশিত হওয়ার সুযোগ দিতে হবে।

4. শিক্ষকের ভূমিকা

শিশু কেন্দ্রিক শিক্ষায় শিক্ষকের ভূমিকা হল শিক্ষার্থীর বন্ধু, দার্শনিক ও পথপ্রদর্শক (Friend, Philosopher and Guider) অর্থাৎ শিক্ষক শিক্ষার্থীদের প্রয়োজনমতো পরামর্শতার ভূমিকা পালন করবেন। শিক্ষক ও শিক্ষার্থীর বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের ব্যক্তিত্বের পরিপূর্ণ বিকাশ সাধন সম্ভবপর হবে.

5. মুক্ত শৃঙ্খলা

শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষার অন্যতম বৈশিষ্ট্য হল মুক্ত শৃঙ্খলা। শিশুকে ভয় দেখিয়ে বা জোর করে শৃঙ্খলা স্থাপন করা যাবে না। তাহলে শিশুর স্বাভাবিক বিকাশ ব্যাহত হবে। তাই শিশু কেন্দ্রিক শিক্ষায় শিশুকে মুক্ত শৃঙ্খলার মাধ্যমে শিক্ষাদান করার কথা বলা হয়েছে।

6. আধুনিক ও মনোবিজ্ঞানসম্মত

শিশু কেন্দ্রিক শিক্ষা অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্য হল এটি আধুনিক ও মনোবিজ্ঞান সম্মত। কেননা শিশুর আগ্রহ, চাহিদা, মানসিক ক্ষমতা বা সামর্থ্য প্রভৃতির উপর গুরুত্ব আরোপ করে শিক্ষাদান করার কথা বলা হয়েছে। এ বিষয়ে বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ পেস্তালৎসি বলেছেন – “I wish psychologize Education”. অর্থাৎ আমি শিক্ষাকে মনোবিজ্ঞান সম্মত করতে চাই।

7. ব্যক্তি স্বাতন্ত্র

শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষার অন্যতম বৈশিষ্ট্য হল ব্যক্তি স্বতন্ত্রতা। প্রতিটা শিক্ষার্থীর নিজস্ব বৈশিষ্ট্য বর্তমান। আর এই ব্যক্তি স্বতন্ত্রের উপর ভিত্তি করে শিশু কেন্দ্রিক শিক্ষা রচিত হয়েছে। অর্থাৎ এখানে শিশুর চাহিদা আগ্রহ প্রবণতা করা হয়েছে।

সংকীর্ণ অর্থে শিক্ষার ধারণা, 2 টি সংজ্ঞা ও বৈশিষ্ট্যব্যাপক অর্থে শিক্ষার ধারণা, সংজ্ঞা ও বৈশিষ্ট্য
ভাববাদের ধারণা, সংজ্ঞা, মূলনীতি ও শিক্ষায় প্রভাবপ্রয়োগবাদের ধারণা, সংজ্ঞা, মূলনীতি ও শিক্ষায় প্রভাব
বাস্তববাদ বা বস্তুবাদের ধারণা, সংজ্ঞা, মূলনীতি ও শিক্ষায় প্রভাব প্রকৃতিবাদের ধারণা, সংজ্ঞা, মূলনীতি ও শিক্ষায় প্রভাব

এগুলি ছাড়াও শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষার (Child Centered Education) যে সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্য পরিলক্ষিত হয়, সেগুলি হল –

  • শিক্ষার লক্ষ্য হবে শিশুর সর্বাঙ্গীন বিকাশ সাধনের প্রক্রিয়া,
  • শিক্ষার পাঠক্রম মনোবিজ্ঞান সম্মত, বাস্তবসম্মত এবং পরিবর্তনশীল,
  • চাহিদা ভিত্তিক শিক্ষা,
  • শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষার খেলাভিত্তিক পদ্ধতি বর্তমান,
  • সহযোগিতামূলক ও সক্রিয়তা ভিত্তিক,
  • গণতান্ত্রিক নীতি অনুসৃত হয়,
  • অভিজ্ঞতা ভিত্তিক,
  • ব্যক্তিসত্তার পরিপূর্ণ বিকাশ সাধন প্রভৃতি।

উপসংহার (Conclusion)

সর্বোপরি বলা যায়, শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষা (Child Centered Education) শিশুকে কেন্দ্র করে রচিত হয়েছে। এবং সেই অনুযায়ী শিক্ষার লক্ষ্য, শিক্ষার পাঠক্রম, শিক্ষাদান পদ্ধতি, শিক্ষকের ভূমিকা প্রভৃতি নির্ধারিত হয়ে থাকে। তাই আধুনিক শিক্ষার অন্যতম ভিত্তি হল শিশু কেন্দ্রিকতা।

তথ্যসূত্র (References)

  • V.R. Taneja, Educational Thoughts & Practice. Sterling Publication Pvt. Ltd. New Delhi
  • Nayak, B.K, Text Book of Foundation of Education. Cuttack, Odisha: KitabMhal
  • Ravi, S. Samuel, A Comprehensive Study of Education, Fourth Printing-May 2016, Delhi – 110092, ISBN – 978-81-203-4182-1,
  • Internet sources

প্রশ্ন – শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষার উদ্দেশ্য কি?

উত্তর – শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষার প্রধান উদ্দেশ্য হল শিশুকে গুরুত্ব আরোপের মাধ্যমে শিশুর ব্যক্তিসত্তার বিকাশ সাধন করা। অর্থাৎ শিশুর চাহিদা, আগ্রহ, প্রবণতা অনুযায়ী শিক্ষাদানের মাধ্যমে ব্যক্তিত্বের সর্বাঙ্গীণ বিকাশ সাধন।

প্রশ্ন – শিশু শিক্ষার জনক কে?

উত্তর – শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষার জনক (Father of child centered education) হলেন ফরাসি শিক্ষাবিদ ও দার্শনিক রুশো (Jean Jacques Rousseau).

প্রশ্ন – শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষার প্রবর্তক কে?

উত্তর – শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষার (Child Centered Education) প্রধান প্রবক্তা হলেন ফরাসি শিক্ষাবিদ ও দার্শনিক রুশো (Jean Jacques Rousseau).

প্রশ্ন – রুশো কে কেন শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষার জনক বলা হয়?

উত্তর – রুশোকে শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষার জনক বলা হয়, কারণ তিনি সর্বপ্রথম শিশুর চাহিদা, আগ্রহ, প্রবণতা ও সামর্থ্য প্রভৃতির উপর গুরুত্ব আরোপ করে যাবতীয় শিক্ষাদানের কথা বলেছিলেন।
শিশু কেন্দ্রিক শিক্ষার উপর গুরুত্ব আরোপ করতে গিয়ে তিনি বলেন – প্রকৃতিদত্ত সবকিছুই ভালো, কিন্তু মানুষের হাতে তা কলুষিত হয়। সেই জন্য শিশুকে প্রকৃতির কোলে মুক্তভাবে শিক্ষাদানের কথা বলেছিলেন।

প্রশ্ন – শিশু শিক্ষা কে কে খেলা ভিত্তিক করতে চেয়ে ছিলেন?

উত্তর – বিশিষ্ট প্রকৃতিবাদী শিক্ষাবিদ রুশো (Jean Jacques Rousseau) শিক্ষাকে খেলাভিত্তিক করতে চেয়েছিলেন। তবে পরবর্তীকালে শিক্ষাবিদ কুক (Cook) শিশুদের উপর গুরুত্ব আরোপ করতে গিয়ে খেলা ভিত্তিক শিক্ষার প্রবর্তন করেছিলেন।

আরোও পড়ুন

1 thought on “শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষা কি (Child Centered Education) : ধারণা, সংজ্ঞা ও বৈশিষ্ট্য”

Leave a Comment

close